ePaper

বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিক উৎপাদন শুরু করলো লেইস

বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিক উৎপাদন শুরু করলো লেইস
অর্থনীতি কর্পোরেট সংবাদ

লেইস, পেপসিকোর প্রশংসিত পটেটো চিপস ব্র্যান্ডের মধ্যে থাকা একটি বিখ্যাত ব্রান্ড, বাংলাদেশে লেইস এর ব্যাপক চাহিদা থাকার কারনে, 'লেইস মেক ইন বাংলাদেশ' পদক্ষেপটি নেওয়া হয়েছে। ট্রান্সকম কনজিওমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের সহযোগিতায় এই পদক্ষেপটি একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক হিসাবে বিবেচিত হবে। বাংলাদেশে লেইস এর আইকনিক পটেটো চিপস স্থানীয়ভাবে প্রস্তুত করার জন্য প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত করার মাধ্যমে, লেইস এর উপলভ্যতার উদাহরণ হিসাবে কার্যকরী কর্মী সম্প্রদায়ের সমর্থন করতে এবং অঞ্চলের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে লেইস এর প্রতিশ্রুতিগুলি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে।

ট্রান্সকম গ্রুপের সাথে শক্তিশালী এবং ফলপ্রসূ অংশীদারিত্বের কারণে দুই দশক ধরে দেশে পেপসিকোর উপস্থিতি থেকে ‘লেইস মেক ইন বাংলাদেশ’ উদ্যোগের সূচনা হয়েছে। বাংলাদেশে লেইস -এর বিদ্যমান জনপ্রিয়তা থেকে উপকৃত হয়ে, এই উদ্যোগটি উদ্ভাবনী ফরম্যাট এবং ফ্লেভারের ক্রমবর্ধমান স্থানীয় চাহিদা পূরণ করবে, যা ভোক্তাদের জন্য একটি আনন্দদায়ক স্ন্যাকিংয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে আসবে।

বাংলাদেশের উত্তরে অবস্থিত বগুড়া প্লান্টের একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হল কৃষির সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক, আলুর উৎপাদনের হাব। বাংলাদেশের উত্তরে অবস্থিত বগুড়া এর একটি প্রধান বৈশিষ্ট্য হল এর কৃষির সাথে নিকট সম্পর্ক। লেইস এর উন্নয়নের সাথে শুরু হওয়ার প্রথম বছরে দশ হাজার মেট্রিক টন, উন্নয়নের জন্য ১২০০ জনেরও বেশি স্থানীয় কৃষকের সাথে দৃঢ় সম্পর্কের মাধ্যমে, একটি নিরাপদ বাজার সরবরাহের মাধ্যমে তাদের সাথে একটি নির্ভরযোগ্য বাজার তৈরি করা হবে। পেপসিকোর আলোচিত আলোকে মান হিসাবে উন্নয়নের জন্য ভ্যালু চেইন আপস্কিলিং, একটি পার্থক্যকারী হিসাবে, পেপসিকোর আলুর ভর র‍্যাম্প-আপ যাত্রা গুরুত্বপূর্ণ হবে। এই স্টেট-অফ-দ্য-আর্ট সুবিধা একাধিক সরাসরি এবং পরোক্ষ চাকরির সৃষ্টির হাব এই ইতিবাচক প্লান্টের প্রভাব সীমানা পেরিয়ে বহুদূর ছরিয়ে পরছে, কারণ এটি পুরো গো-টু-মার্কেট কাঠামো জুড়ে  তৈরি করছে একটি রিপল ইফেক্ট।

বাংলাদেশে লেইস উৎপাদনকারী প্রতিটি প্ল্যান্টের লক্ষ্য এবং প্রতিশ্রুতি তুলে ধরে, বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ম্যানেজার প্রণব মেহতা বলেন, “লেইস একটি জনপ্রিয় ব্র্যান্ড যা স্বাদের মূর্ছনায় গ্রাহকের প্রতিটি মুহূর্তগুলোকে একত্রিত করে এক জাদুকরী আবেশ তৈরি করে। ট্রান্সকমের সাথে অংশীদার হয়ে ‘লেইস মেক ইন বাংলাদেশ’। উদ্যোগটি গ্রহণ করে বাংলাদেশে লেইস চালু করা ছিলো এক অন্যরকম অভিজ্ঞতা যা আমাদের অনুপ্রানিত করেছে ভবিষ্যত পরিকল্পনা গ্রহণে। এই উদ্যোগটি কেবল লক্ষ লক্ষ গ্রাহকদের জন্যই শুধু আনন্দই আনবে না সাথে সাথে তারা এখন দেশেই তৈরি লেইস-এর পণ্যগুলি উপভোগ করতে পারবেন খুবই সাশ্রয়ী মূল্যে মাত্র ১০ টাকায়। পাশাপাশি এর উৎপাদনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলেকে অনুপ্রাণিত করে যারা তাদের কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সুস্বাদু এই স্ন্যাক্স সকলের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিচ্ছে। প্ল্যানটি একটি টেকসই কৃষি ব্যবসা মডেলের মাধ্যমে বাংলাদেশের বৃদ্ধি ও সমৃদ্ধিতে সক্রিয়ভাবে অবদান রাখতে পারে বলে আমি আশাবাদী।“

পেপসিকো ইন্ডিয়ার প্রেসিডেন্ট আহমেদ এলশেখ উদ্যোগটি সম্পর্কে বলেন, "উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য এই প্ল্যান্টটি  স্থানীয় ক্ষমতায়ন, কমিউনিটির উন্নয়ন এবং দীর্ঘমেয়াদী অংশীদারিত্বের প্রতি লেইস-এর প্রতিশ্রুতির এক উজ্জ্বল দৃটান্ত৷ ট্রান্সকমের সাথে আমাদের অংশীদারিত্বের এই নতুন অধ্যায়টির যাত্রা এই অঞ্চলের সমৃদ্ধি নিশ্চিত করবে। আমরা বাংলাদেশের এই ঐতিহাসিক মাইলফলকের জন্য গর্বিত যেখানে পেপসিকো একটি বৃহৎ কৃষক সম্প্রদায়ের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করতে পারবে। আমরা আশাবাদী যে আমাদের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি, দক্ষতা এবং জ্ঞান সংযোগ কৃষক ও স্থানীয় জনগণের মাঝে হাতে কলমে আলু চাষের উন্নতি সাধনে সাহায্য করবে।”

ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমান বলেন, “আমরা দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এই অঞ্চলে পেপসিকোর বিশ্বস্ত অংশীদার এবং বাংলাদেশে তাদের যাত্রায় আরেকটি মাইলফলকে পাশে দাঁড়াতে পেরে গর্বিত। আজ বাংলাদেশের মানুষের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন কারণ বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় ব্র্যান্ড লেইস এখন স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হবে। এই উদ্যোগ কৃষক, কৃষি সংস্থা, পরিবহনকারী, কোল্ড স্টোরেজ, চুক্তিভিত্তিক কর্মীসহ সমগ্র ইকোসিস্টেমকে শক্তিশালী করে এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের একটি নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে। আমরা নিশ্চিত যে বাজারের প্রতি পেপসিকোর প্রতিশ্রুতি, কোম্পানি এবং ব্র্যান্ড লেইস-এর বিকাশ ত্বরান্বিত করেবে।”

পেপসিকো ইন্ডিয়া অঞ্চলের প্রেসিডেন্ট আহমেদ এলশেখ এবং ট্রান্সকমের গ্রুপ সিইও সিমিন রহমান বগুড়ায় এই প্ল্যান্টের উদ্বোধন করেন। পেপসিকোর এই উদ্যোগের মাধ্যমে উচ্চমানের আলু চাষে কৃষকদের প্রশিক্ষণের দ্বারা বাংলাদেশকে স্থানীয় লেইস পটেটো চিপস উৎপাদনের একটি নির্ভরযোগ্য, গুণমান-চালিত এবং ব্যয়-দক্ষ কেন্দ্র তৈরি করা হবে। এছাড়াও এই এগ্রো-প্রোকিউরমেন্ট মডেলটি এই অঞ্চলে টেকসই কৃষি অনুশীলনকে উত্সাহিত করতে সহায়তা করবে।

মেড-ইন-বাংলাদেশ লেইস চিপসটি ১০ টাকা, ১৫ টাকা, ২৫ টাকা, ৫০ টাকা এবং ৭৫ টাকা মূল্যের চারটি ভিন্ন সুস্বাদু স্বাদে পাওয়া যেবে, যে গুলো হলো আমেরিকান স্টাইল ক্রিম ও অনিয়ন, স্প্যানিশ টমেটো ট্যাঙ্গো, ক্লাসিক সল্টেড এবং থাই স্টাইলের স্পাইসি চিকেন।